Saturday, September 19, 2020
- Advertisement -
Home ডাক্তার হার্ট সুস্থ রাখার গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস যেটা সবার জানা প্রয়োজন

হার্ট সুস্থ রাখার গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস যেটা সবার জানা প্রয়োজন

নিজেস্ব প্রতিবেদক :

প্রতিনিয়তই আমরা ফরমালিন এবং ভেজাল যুক্ত খাবারে অভ্যস্ত ।তাই নিজেদের শরীর সুস্থ থাকার চেয়ে বড় নিয়ামত এই দুনিয়াতে আরকিছু নেই। শরীরের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হার্ট তাই এই হার্টের প্রতি আমাদের একটু আলাদাই যত্ন নেওয়া প্রয়োজন।

হার্ট বা হৃদয় আমাদের শরীরের সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গের মধ্যে একটি। এই হৃদয় ৪-৬ মিনিটের জন্য বন্ধ হয়ে গেলে একজন মানুষ মারা যেতে পারে। সুস্থ ও সুন্দর জীবনের জন্য একটি সুস্থ হার্টের অনেক দরকার আমাদের। হার্ট সুস্থ না থাকলে আমাদের স্বাভাবিক জীবনযাত্রা ব্যহত হয়। আজকের এই আর্টিকেলে আমরা আপনাদের হার্টের সুস্থতার ব্যপারে ১০টি টিপস দিব যা আপনাদের সারা জীবন কাজে লাগবে।

সুস্থ হার্টের জন্য ১০টি টিপস

১:) সিগারেট পুরোপুরি ছেঁড়ে দিনঃ সিগারেট আমাদের শরীরের উপর ব্যাপক নেগেটিভ প্রভাব ফেলে। বিশেষজ্ঞদের মতে একজন অধূমপায়ী, এক অন ধূমপায়ীর থেকে প্রায় দিগুণ বাঁচে। ধূমপান ফুস্ফুস এবং হার্টের প্রচুর ক্ষতি করে। যেই মুহুর্ত থেকে আপনি ধূমপান ছেঁড়ে দিবেন আপনি অনুভব করবেন আপনি একটা নতুন জীবন পেয়েছে। তাই আজ থেকেই ধুমপান ছেঁড়ে দিন।

২:)  লবণ কম খানঃ অতিরিক্ত লবণ খাওয়া মানুষের রক্তচাপের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। আর উচ্চ রক্তচাপ মানুষের করনারি হার্টের অসুখের ঝুঁকি বাড়িয়ে দেয়। তাই খাবারের সাথে অতিরিক্ত লবণ খাওয়া বন্ধ করতে হবে। আমরা এখন ফাস্টফুডে যে সমস্ত খাবার খাই এবং প্যাকেট জাতীয় যে সমস্ত খাবার খাই যেমন- পিজ্জা, বার্গার, চিপস, টিনজাত খাবার ইত্যাদি খাবারের মধ্যে প্রচুর পরিমানে লবণ থাকে। আমাদের কাঁচা লবণের পাশাপাশি এই ধরনের খাবারও এড়িয়ে চলতে হবে।

৩:) খাদ্যাভ্যাস পরিবর্তন করাঃ বলা হয়ে থাকে পেট থেকে সুস্থতার শুরু হয়। আপনি কি খাচ্ছেন তার উপরে নির্ভর করে আপনি কতোটা সুস্থ থাকবেন। আপনার হার্টকে সুস্থ রাখতে তেল ও চর্বি জাতীয় খাবার কম খান। যত পারেন শাকসবজি খান। কোলেস্টেরল বাড়ে এমন খাবার না খাওয়াই শ্রেয়।

৪:) নিয়মিত ডাক্তারের পরামর্শ নিনঃ আপনার যদি হার্টের সমস্যা থাকে বা আপনার বংশে যদি হার্টের সমস্যার ইতিহাস থাকে তাহলে এটাকে সিরিয়াসলি নিন। নিয়মিত আপনার ডাক্তারের কাছে যান। তার পরামর্শ অনুযায়ী চলুন। ডাক্তারের কোন এপয়েন্টমেন্ট বাদ দিবেন না।

৫:) শারিরিক পরিশ্রম করুনঃ শারিরিক পরিশ্রম এবং ব্যায়াম হার্ট সহ পুরো শরীরের জন্য উপকারী। আমেরিকান হার্ট এসোসিয়েশনের মতে একজন সুস্থ মানুষের প্রতি সপ্তাহে ১৫০ মিনিট মাঝারী ব্যায়াম অথবা ৭৫ মিনিট ভারি ব্যায়াম করা উচিত। প্রতিদিন নিয়ম করে ব্যায়াম করুন, হতে পারে তা হাঁটা, দৌড়ানো অথবা সাঁতার।

৬:) বসা কাজ কম করুনঃ আধুনিক যুগে আমরা কম্পিউটার অথবা টিভির সামনে অনেক সময় কাটায়। এভাবে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কোন মুভমেন্ট ছাড়া এক জায়গায় বসে থাকা যেমন হার্টের বিভিন্ন অসুখ তৈরি করে তেমনি বিভিন্ন রিসার্চে দেখা গেছে এর কারণে মানুষের আয়ুও কমে যায়। আপনার কাজ যদি বসা হয় তাহলে প্রতি ৪০ মিনিট পর উঠে ২-৫ মিনিট হাঁটুন। আর নিজের অবসরে শারীরিক ব্যায়াম করুন।

৭:) ওজন নিয়ন্ত্রণে রাখুনঃ অতিরিক্ত ওজন শরীরের সম্পুর্ন স্বাস্থ্যের জন্য ক্ষতিকর। সুস্থ হার্টের জন্য নিজের ওজন কমান। অতিরিক্ত মেদ বিশেষ করে শরীরের মধ্যভাগ মানে পেট এবং পেটের নিচের মেদ ব্লাড প্রেসার ও কোলেস্টেরলের সাথে সম্পর্কযুক্ত। সুতরাং সুস্থ হার্টের জন্য ওজন কমান।

৮:) অতিরিক্ত চিন্তা থেকে দূরে থাকুনঃ দুশ্চিন্তা মানুষের সামাজিক জীবনের উপর যেমন প্রভাব ফেলে তেমনি মানুষের শারীরিক ও মানসিক স্বাস্থ্যেরও ক্ষতি করে। এটি হার্টের জন্যও ক্ষতিকারক। কখনই চিন্তাকে মনে বাসা বাঁধতে দিবেন না। সব সময় মনকে শান্ত রাখার জন্য মেডিটেশন করুন অথবা সুন্দর কোন গান শুনুন।

৯:) পর্যাপ্ত পরিমাণে ঘুমানঃ পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমান আমাদের সুস্থ থাকার অন্যতম প্রধান শর্ত। না ঘুমালে মানুষের ব্লাড প্রেসার বেড়ে যায়, মানুষ অতিরিক্ত খায় এবং তার পরিষ্কার চিন্তা করার ক্ষমতা কমে যায়। তাই প্রতিদিন পর্যাপ্ত পরিমাণ ঘুমান।

১০:) কোলেস্টেরল ও ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণে রাখুনঃ অতিরিক্ত কোলেস্টেরল এবং বেশি রক্তচাপ আমাদের হার্টের জন্য খুবই ক্ষতিকর। তাই কোলেস্টেরল এবং ব্লাড প্রেসার সবসময় মনিটর করুন। যদি কোন সমস্যা হয় ডাক্তারের পরামর্শ নিন।

- Advertisment -

সর্বশেষ