Monday, September 28, 2020
- Advertisement -
Home লাইফস্টাইল স্বামীর সঙ্গে রাগারাগি হলেও নিজেকে নিয়ন্ত্রন করে স্বাভাবিক জিবনে ফিরে আসা শিখুন

স্বামীর সঙ্গে রাগারাগি হলেও নিজেকে নিয়ন্ত্রন করে স্বাভাবিক জিবনে ফিরে আসা শিখুন

নিজেস্ব প্রতিবেদক ।

যে কোনো সম্পর্কেরই চড়াই উতরাই রয়েছে। দাম্পত্য সম্পর্কে হলে তো আরো বেশি। ফলে কোনো একদিন প্রেম যেমন গাঢ় হয়ে উঠতে পারে, তেমনি তার ক’দিন পরেই ফাটাফাটি ঝগড়াও হতে পারে।
প্রতিদিনই এমনটা হতে পারে। কিন্তু এটা সম্পর্কের জন্য আদৌ ভালো নয়। আপনাকে মাথায় রাখতে হবে সম্পর্ক যাতে আরো তেতো না হয়ে যায়। রাগ হলে পুষে রাখা চলবে না। তার জন্য যা করবেন-

খারাপ স্মৃতিগুলো ভুলে যাওয়ার চেষ্টা করুন:
এমনিতেই মানুষের স্বভাব হল ভালো স্মৃতিগুলোকে এড়িয়ে গিয়ে খারাপগুলোকে মনে রাখা। কিন্তু এ ক্ষেত্রে সেটা করলে পস্তাতে হবে। তাই সমস্ত তিক্ততার স্মৃতি ভুলে গিয়ে সুখের মুহূর্ত, প্রেমের মুহূর্তগুলো মনে রাখুন। যতবার ঝগড়ার মুহূর্তগুলো মনে করবেন, আপনার তিক্ততা বাড়বে বই কমবে না। তাই চেষ্টা করুন মাথার মধ্যে থেকে ওই দৃশ্যগুলো মুছে দিতে।
ভুল থেকে শিক্ষা নিন স্বামী-স্ত্রীর মধ্যে ঝগড়ায় কোনও এক পক্ষ সবসময় ঠিক হবেন, এটা সাধারণত হয় না। যদি মনে হয় আপনি ভুল করেছেন, সেটা মেনে নিন, তা থেকে শিক্ষা নিন। যদি স্বামীর ভুল থাকে, তা হলে পরিস্থিতি ঠান্ডা হলে সেটা ওঁকে স্পষ্ট করে জানান। আপনাদের মধ্যে ভালোবাসার টান থাকলে উনি বুঝবেন।
জার্নাল রাখুন কী কী বিষয় নিয়ে আপনাদের মধ্যে ঝগড়া বাধে, তার একটা লিস্ট করতে পারলে মন্দ হয় না! খাতায় লিখে রাখুন বিষয়গুলো। যখন দু’জনেরই মন ভালো থাকবে, লিস্টটা নিয়ে বসে আলোচনা করুন। দাম্পত্যশান্তি বজায় রাখতে কোন কোন বিষয়গুলো বদলানো প্রয়োজন তা নিয়ে দু’জনে একটা সিদ্ধান্তে আসুন।

নিজেকে একটা সম্পর্কে আবদ্ধ করে রাখবেন না:
সারাক্ষণ দাম্পত্য সম্পর্কের মধ্যে নিজেকে ধরে রাখবেন না। আপনার জীবনে গুরুত্বপূর্ণ আরও যে সব মানুষেরা আছেন, তাদের কথাও ভাবুন, তাঁদের সময় দিন। তাতে একঘেয়েমি থেকে মুক্তি পাবেন, দাম্পত্য সম্পর্কটাকেও অন্য চোখে দেখতে সুবিধে হবে।

নিজেকে অপরাধী ভাবা বন্ধ করুন:
দাম্পত্যকলহ সব স্বামী-স্ত্রীর মধ্যেই হয়। তার জন্য নিজেকে অপরাধী ভাববেন না। আত্মবিশ্বাস ধরে রাখুন। আপনি যদি চাকরিজীবী হন, তা হলে পেশায় আরও ভালো কাজ করে দেখান। যদি গৃহবধূ হন, তা হলে অবসরে কিছু একটা কাজ করুন, কোনও হবির চর্চা করুন। এক কথায় নিজের জন্য আলাদা একটা জায়গা তৈরি করুন। নিজে যদি মন থেকে খুশি থাকতে পারেন, তার ইতিবাচক প্রভাব আপনার সম্পর্কেও পড়বে।

- Advertisment -

সর্বশেষ