Friday, September 18, 2020
- Advertisement -
Home ঢালিউড শাকিবের চোখে সালমান শাহ!

শাকিবের চোখে সালমান শাহ!

আনিফা আরশি:

নব্বই দশকের বাংলা ছায়াছবির জগতে সাড়া জাগানো অভিনেতা সালমান শাহ। মাত্র চার বছরের ক্যারিয়ারে ২৭টি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেন তিনি। দুই যুগ আগে আজকের এই দিনে (৬ সেপ্টেম্বর) মৃত্যুবরণ করেন তিনি। মৃত্যুর এত বছর পরও জনপ্রিয়তা কমেনি, বরং বেড়েছে বহু গুণ। বর্তমান সময়ের চলচ্চিত্র তারকাদের চোখেও তিনি পথদ্রষ্টা। শাকিব খানেরও যে প্রিয় নায়ক তা অকপটে স্বীকার করেন শাকিব। আর তাই প্রিয় নায়কের মৃত্যুর দিনে শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করলেন এ নায়ক।চিত্রনায়ক শাকিব খান সালমান শাহকে স্মরণ করে জানান, সময়ের চেয়ে এগিয়ে থাকা এক নাম সালমান শাহ। নানা চড়াই উৎরাই পেরিয়ে অগণিত ভক্ত দর্শকের ভালোবাসায় নিজেকে খ্যাতির চূড়ায় নিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। মাত্র চার বছরেই বাংলা চলচ্চিত্রে নির্ভরযোগ্য নামে পরিণত হয়েছিলেন প্রয়াত সালমান ভাই। তিনি ছিলেন ভীষণ কাজ পাগল মানুষ। ভালো কাজের বিকল্প কিছু নেই এ কথা তার চেয়ে আর বেশি কে জানত! মাত্র কয়েক বছরের ক্যারিয়ারে তার সিনেমার সংখ্যার দিকে তাকালেই সেটা বোঝা যায়। তাই স্বাভাবিকভাবেই কিছু মানুষের চক্ষুশূল হয়েছিলেন তিনি। তাকে থামিয়ে দিতে বহু অপচেষ্টা হয়েছিল, সংবাদমাধ্যমগুলো তার সাক্ষী। তার মতো সর্বপ্রিয় মানুষটিকেও নিষিদ্ধ করা হয়েছিল! তবু থেমে যাননি সালমান ভাই। অভিনয় চালিয়ে গিয়েছিলেন। ইন্ডাস্ট্রির প্রয়োজনে একের পর এক হিট সিনেমা উপহার দিয়ে গেছেন। হয়তো সেজন্য মৃত্যুর চব্বিশ বছর পরেও তার জন্য মানুষ চোখের পানি ফেলেন।শাকিব আরো জানান, আজকের প্রেক্ষাপটে দাঁড়িয়ে আমরা উপলব্ধি করি; সালমান ভাইয়ের মতো নিখুঁত, সাবলীল একজন স্টাইল আইকন তখন খুব দরকার ছিল। অন্তত পশ্চিমা আইকনিজমের কাউন্টার দেয়ার জন্য। তৎকালীন সালমান শাহ সেটা হয়েও উঠছিলেন। তাকে দেখে কতো তরুণ যে চলচ্চিত্রে অভিনয়ে আগ্রহী হয়েছে সেটা আর নাই বা বললাম। সময়ের চেয়ে এগিয়ে থাকা আমাদের পূর্বসুরি অভিনেতার মৃত্যুদিনে শ্রদ্ধা জানাই। যুগের পর যুগ তিনি আমাদের স্বপ্নের নায়ক হয়েই থাকবেন। প্রিয় সালমান ভাই, যেখানেই থাকুন আপনার আত্মার শান্তি কামনা করছি।
সালমান শাহর নামে এফডিসিতে একটি শুটিং ফ্লোর দাবি করে শাকিব খান বলেন, ‘দেশ-বিদেশের অসংখ্য দর্শকের মতো সালমান শাহ আমারও প্রিয় নায়ক। তিনি আমাদের প্রাণের নায়ক। গুণী একজন অভিনেতা ছিলেন তিনি। মৃত্যুর এত বছর পরও তিনি মানুষের কাছে সমানভাবে জনপ্রিয়। তিনি রয়েছেন কোটি ভক্তের মনে। অথচ এফডিসিতে তার নামে কিছু নেই। দীর্ঘদিন ধরে আমি দাবি করে আসছি, এফডিসিতে তার নামে কিছু হোক। আমি তার ভক্ত হিসেবে এফডিসিতে একটি ফ্লোর বা অন্য কোনো স্থাপনার নামকরণের দাবি করছি।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisment -

সর্বশেষ